সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
নোটিস :
আমাদের সাইট-এ প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে,যোগাযোগ করুন>> 01712-129297>>>01712-613199>>>01926-659742>>>

হবিগঞ্জের লাখাইয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা, সমালোচনার ঝড়।

স্টাফ রিপোর্টার: / ১৪৫ বার
আপডেটে : সোমবার, ১৫ জুন, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার: হবিগঞ্জের লাখাইয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা না হত্যা এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে চলছে ব্যাপক সমালোচনার ঝড়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় লাখাই উপজেলার ধর্মপুর গ্রামের রুহুল আমীনের মেয়ে কালাউক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী আঁখি আক্তারের সাথে একই গ্রামের শাহ আলম মাষ্টারের ছেলে সাফায়াত হোসেন রানার দীর্ঘ দিন যাবত প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে দেখা যায় ইদানিং আঁখি আক্তারের পারিবারের কাছে বিবাহের প্রস্তাব আসে বিভিন্ন এলাকা থেকে। বিষয় টি তার প্রেমিক রানা কে জানায়। সেই সাথে তাকে ঘরের তুলে নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানায় কিন্তু রানা এখন তার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সময় বলে তাকে এড়িয়ে যায় এবং তাকে বিবাহ করতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে বিমর্ষ হয়ে পড়ে আঁখি আক্তার।

এক পর্যায়ে প্রেমিক রানার উপর অভিমান করে বুলেট নামক কীটনাশক সেবন করে আত্মহত্যার পথ বেঁচে নেয়।

ফেইসবুকে ভাইরাল হওয়া কথোপকথনের তথ্য অনুযায়ী রানা বলেন, আমি আঁখি কে অনেক ভালবাসতাম কিন্তু বিয়ে করা এখন সম্ভব ছিল না। আমি আঁখিকে তার পরিবারের পছন্দেই রাজী হতে বলছিলাম। ও কিছুতেই আমাকে ছাড়া কাউকে বিয়ে করবে না। তাই আমি রাগে বলে দিছি আমি তাকে কে ভালবাসি না, ওর সাথে অভিনয় করছি এই রাগের কারনেই আজকে আমার ভালবাসার মানুষ টা লাশ হয়ে গেল, বুক টা আমার ফেটে যাচ্ছেরে খুব খারাপ লাগতাছে, যদি জানতাম এমন হবে তাহলে কখনো এরকম করতাম না।

এ ব্যাপারে লাখাই থানার ওসি (তদন্ত) অজয় চন্দ্র দেব জানান, আঁখি আক্তার ও তার চাচাত ভাই সাফায়াত হোসেন রানার মধ্যে দীর্ঘ দিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে ধারণা করা যাচ্ছে। তিনি আর ও বলেন এখন পর্যন্ত এবিষয়ে কোন অভিযোগ দায়ের করা হয় নাই। অভিযোগ দায়ের করা হলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার বিকালে আঁখি আক্তার পরিবারের সকলের অগোচরে বুলেট নামক কীটনাশক সেবন করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। বিষয়টি পরিবারের লোকজনের দৃষ্টি গোচর হলে প্রথমে লাখাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরবর্তীতে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে তার অবস্থা চরম অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন রাতেই আঁখি আক্তার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com