শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ১০:৪৭ অপরাহ্ন
Logo
শিরোনাম :
মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ‘এওলাসার সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র ২দিনের আয়োজন ভূমি ও গৃহহীনদের ঘর প্রদান উপলক্ষে মাদারীপুর জেলা প্রশাসকের সংবাদ সম্মেলন কঠিন বাস্তবতা তুমি – হাসনাহেনা রানু নৌকা মার্কা ছাড়া নন্দীগ্রামে মানুষের উন্নয়ন সম্ভব নয় মুসলিম দেশগুলোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেন নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বাংলাদেশের কাছে করোনার টিকা হস্তান্তর করলো ভারত নন্দীগ্রাম পৌরসভা নির্বাচনে যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা প্রশাসন কঠোর হস্তে দমন করবে জকিগঞ্জ থানার ওসির দাবী ‘বিচারককে উৎকোচ দেয়ার জন্য ক্লোজ হননি এসআই মোঃ রাজা মিয়া সিলেটে হোটেলে অসামাজিক কার্যকলাপ, আটক ১২
নোটিস :
আমাদের সাইট-এ প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে,যোগাযোগ করুন>> 01712-129297>>>01712-613199>>>01926-659742>>>

শোলাকিয়া হামলার চার বছর।কি ঘটেছিল সেদিন।

মো: মুজাহিদিল ইসলাম: / ৯৫ বার
আপডেটে : মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০২০

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি::২০১৬ সালের ৭ জুলাই। দিনটি ছিল বৃহস্পতিবার। ঈদুল ফিতরের দিন। সময় সকাল পৌনে নয়টা। কিশোরগঞ্জ শহরের প্রতিটি রাস্তা, অলিগলিতে জনস্রোত। সবাই শোলাকিয়ার দিকে যাচ্ছিলেন।

১০টায় শুরু হবে ঈদজামাত। মাঠে চলছে সহকারী ইমামের বয়ান। এর মধ্যেই হঠাৎ দুমদাম বিস্ফোরণের শব্দ। বিস্ফোরণ হয় মাঠ থেকে দুইশ’ গজ দূরে আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে, মুফতি মোহাম্মদ আলী মসজিদের সামনের রাস্তায়।

ঈদগাহমুখী জনস্রোতের সামনেই চেকপোস্টে বাধা পেয়ে এ ঘটনা ঘটায় জঙ্গিরা। সেখানে পুলিশের টহল চৌকি লক্ষ্য করে বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। ঘটনার আকস্মিকতায় হতভম্ব হয়ে পড়ে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সবুজবাগ গলির মাথায় মুফতি মোহাম্মদ আলী মসজিদের সামনে টহলরত ছিলেন ১০/১২ জন পুলিশ সদস্য। সেখান দিয়ে জঙ্গিরা ভেতরে ঢোকার সময় তাদের ব্যাগ তল্লাসি করতে যায় পুলিশ। এর মধ্যেই হাতবোমা ছুঁড়ে মারা হয় পুলিশকে লক্ষ্য করে। বোমার বিস্ফোরণে কয়েকজন পুলিশ সদস্য মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। আক্রান্ত অন্য পুলিশ সদস্যরা আত্মরক্ষার্থে পিছু হটেন।

চেকপোস্ট আক্রান্ত হওয়ার খবরে অন্য পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে জঙ্গিদের ধরতে অভিযানে নামেন। এ সময় জঙ্গিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ শুরু করে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোঁড়া শুরু করে। চেকপোস্টটি দিয়ে ঈদগাহমুখী মুসল্লিরা তখন আত্মরক্ষার্থে দিকবিদিক ছুটতে থাকেন।

জঙ্গি হামলা ও বন্দুকযুদ্ধের পুরো বিষয়টি পাঁচতলার বাসা থেকে প্রত্যক্ষ করেন সবুজবাগ এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান রেনু। তিনি জানান, ঘুম থেকে উঠে জামাতে যেতে গোসলের প্রস্তুতি নেন তিনি, এমন সময়েই বোমার বিস্ফোরণ।

ঘটনার বিবরণ এবং জঙ্গিদের অবস্থান জানিয়ে হাফিজুর রহমান রেনু সদর থানার ওসিসহ জেলা পুলিশের উর্ধতন একাধিক কর্মকর্তাকে ফোনে অবহিত করেন।

এরপরই পুলিশ জঙ্গিদের ধরতে অভিযান শুরু করে। পুলিশের সঙ্গে জঙ্গিদের গোলাগুলিতে তখন কান ঝালাপালা অবস্থা। জঙ্গিরা ঢুকে পড়ে রেনুর বাসার সামনে সবুজবাগ গলিতে। ভয়ে বাসার সবাই দরজা-জানালা বন্ধ করে মেঝেতে শুয়ে পড়েন। নিচের কেঁচি গেট লাগিয়ে দেয়া হয়।

হাফিজুর রহমান রেনু বাসার চার তলায় গিয়ে জানালার পাশে অবস্থান নেন। তাঁর বাসার পাশের বাসার বাইরে ঘুপচিতে দুই জঙ্গি অবস্থান নিয়েছিল। তাঁদের ধরতেই গুলিবিনিময়।

রেনু বলেন, ‘পুলিশ গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে যখন ঘুপচির দিকে এগিয়ে যায় তখন এক হামলাকারী পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা নিক্ষেপ করে। ঘুপচির ওপাশে দেয়াল দিয়ে বন্ধ থাকায় দুই হামলাকারী আটকা পড়ে যায়। এক হামলাকারী এ সময় হাতে থাকা চাপাতি ঘোরাতে ঘোরাাতে পুলিশকে আক্রমণ করতে আসে।

এক পর্যায়ে সে সময়ের কিশোরগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান (বর্তমানে ইটনা থানার ওসি)সহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য একের পর এক গুলি করে চাপাতি হাতে থাকা জঙ্গিকে মাটিতে ফেলে দেন।

সবুজবাগ গলি থেকে পুলিশের ওপর জঙ্গিরা গুলি ছুঁড়ছে। নিক্ষেপ করছে হাতবোমা। বিপরীত দিক থেকে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়ছে। এ সময় একটি গুলি সবুজবাগ এলাকার বাসিন্দা গৌরাঙ্গনাথ ভৌমিকের ঘরের টিনের জানালা ভেদ করে ঘরে তার স্ত্রী ঝর্ণা রাণী ভৌমিকের মাথায় গিয়ে লাগে। সাথে সাথেই মেঝেতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। মৃত্যু হয় তার।

অন্যদিকে জঙ্গি হামলায় আহতদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম তপুর মৃত্যু হয়। এছাড়া কনস্টেবল আনসারুল হককে ময়মনসিংহ সিএমএইচে নেয়ার পর ওইদিনই দুপুরে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

এছাড়া পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ঘটনাস্থলে নিহত হয় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া জঙ্গি আবির রহমান (২৩)। ঘটনাস্থল থেকে অপর জঙ্গি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট এলাকার শফিউল ইসলাম ওরফে ডন (২২) কে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় র‌্যাব আটক করে। পরবর্তিতে নান্দাইলের ডাংরী এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সে মারা যায়।

ওইদিন পুলিশ বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে অসীম সাহসিকতার সাথে জঙ্গিদের প্রতিরোধ করায় নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠিত হয়েছিল শোলাকিয়ার বৃহত্তম ঈদজামাত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com