রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:২৩ অপরাহ্ন
Logo
নোটিস :
আমাদের সাইট-এ প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে,যোগাযোগ করুন>> 01712-129297>>>01712-613199>>>01926-659742>>>

নিয়োগ বাণিজ্য ও মাদকের ভয়াল থাবা আগ্রাসন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা।

হুমায়ুন আহমেদঃ / ৯২ বার
আপডেটে : বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২১

হুমায়ুন আহমেদঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার আলাতুলী ইউনিয়নের রানীনগর দাখিল মাদ্রাসায় নিয়োগ বাণিজ্য করছে অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল হাসান কামাল। তার সহযোগী হিসেবে কাজ করছে অত্র ইউনিয়নের বিএনপির সেক্রেটারী মোঃ সাহাবুল ইসলাম। সরেজমিনে তদন্ত করে জানা যায় ২০১৯ সালে মাওলানা মোঃ নুরুল ইসলাম রানীনগর দাখিল মাদ্রাসার সুপার পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেন। অত্র মাদ্রাসার সহ সুপার মাওলানা মোহাম্মদ নিজামউদ্দিন সুপার হওয়ার জন্য অত্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল হাসান কামাল এর দ্বারস্থ হন। অনেক রফাদফা হওয়ার পর মাওলানা মোহাম্মদ নিজামউদ্দিন কে সুপার পদে নিয়োগ দেওয়ার জন্য চেয়ারম্যান মহোদয় ৫ লক্ষ টাকা নিয়ে নিয়োগ দেন, এছাড়াও সহকারি গ্রন্থাগার পদে মোহাম্মদ মাসুদ রানাকে চার লক্ষ টাকা ঘুষের বিনিময়ে এবং আয়া ও প্রহরী পদে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ঘুষের বিনিময় নিয়োগ দেওয়ার জন্য চেষ্টা করছেন। রানীনগর দাখিল মাদ্রাসার কমিটির সভাপতি আফসারুল আলম (ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি) কে বাদ দিয়ে বিএনপি নেতা মোঃ সাহাবুল কে সাথে নিয়ে চেয়ারম্যান এসব ঘুষবাণিজ্য করেন।

আরো পড়ুনঃজকিগঞ্জের বারহালে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান

এছাড়াও অত্র প্রতিষ্ঠানের মাস্টার মোঃ শাহিন আলম এসবের সাথে জড়িত বলে জানা গেছে। আর এখন সহ সুপার পদে মাওলানা নিজাম উদ্দিন এর জামাই মোঃ মাহবুবুর রহমানকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে, এছাড়াও চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল হাসান কামাল বয়স্ক ভাতা,পঙ্গু ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা এবং সরকারি ঘর নির্মাণের অর্থের অনেক দুর্নীতি করে বলে জানা যায়। চেয়ারম্যান কামরুল হাসান কামাল একজন নেশাগ্রস্ত মানুষ বলে এলাকায় পরিচিত এছাড়াও সে মাদক ব্যবসার সাথে সরাসরি জড়িত বলে জানা গেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিক্ষা অফিসে বারবার অভিযোগ করার পরেও এই নিয়োগ বাণিজ্যের ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি, এছাড়াও মাদকের ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানায় চেয়ারম্যানের মাদক সেবনের অভিযোগ থাকলেও তাকে আইনের আওতায় আনা হয়নি, অতি দ্রুত রাজশাহী ডিসি মহোদয় কে এই নিয়োগ বাণিজ্য এবং চেয়ারম্যানের প্রকাশ্যে মাদক গ্রহণ বন্ধের ব্যাপারে এলাকার মানুষজন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে , এছাড়াও মাওলানা নিজাম উদ্দিনের অতীতে অনেক ছাত্রীর সঙ্গে অনৈতিক শারীরিক সম্পর্ক করে এলাকায় ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি করেছিল, এখন যদি সে পূর্ণ সুপার পদে নিয়োগ পায় তাহলে এলাকার অভিভাবকগণ নিজ সন্তানকে মাদ্রাসায় পড়াতে আপত্তি করছে বলে জানা গেছে। এসব আপত্তিকর কাজ করার জন্য তার দুর্লভপুর মসজিদের ইমামতি চলে যায়। ঈদ গা মাঠের ইমাম হতে চাইলে জনগন তাকে ঘৃনা ভরে প্রত্যাখ্যান তরে। আর তিনি এসব করেন চেয়ারম্যান কামরুল হাসান কামাল এর ছত্রছায়ায়। চেয়ারম্যানের অতিষ্ঠ থেকে বাঁচার জন্য জনগণ ভয়ে মুখ খুলতে পারছে না। কোদালকাটি চরে গিয়ে নেশা করে সারারাত মাতলামি করে। এসব খবর বারবার প্রকাশ হলেও প্রশাসন নিরব ভূমিকা পালন করে বলে জানা গেছে। ঘরবাড়ী নির্মানের জন্য চেয়ারম্যান কামরুল হাসান কামাল দুই কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com