রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০১:৫৫ অপরাহ্ন
Logo
নোটিস :
আমাদের সাইট-এ প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে,যোগাযোগ করুন>> 01712-129297>>>01712-613199>>>01926-659742>>>

করোনাকালীন লকডাউন পরিস্থিতি এবং ঋণের কিস্তিঃ

স্টাফ রিপোর্টার: / ৩৫ বার
আপডেটে : শনিবার, ২০ জুন, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার: বর্তমান পরিস্থিতিতে যেখানে মানুষ খেতে পারছে না, সেখানে কিস্তি দেওয়া বিলাসিতা মাত্র। আমি মনে করি কমপক্ষে আগামী ০৩ মাস সব ধরনের লোনের কিস্তি স্থগিত করা দরকার। মানুষ একটু স্বস্তি নিয়ে বাঁচুক। এই পরিস্থিতিতে শতকরা ৯৫ শতাংশ লোকজন এখনো স্বাবলম্বী হতে পারে নাই। কারণ কাজ করলেই তো তাদের বেতন দেওয়া হবে। আবার অনেকে তো কাজে যোগদান করতে পারে নাই। আবার অনেকেই চাকরি হারিয়েছেন। তবে আমি এটা অস্বীকার করবো না যে ক্ষুদ্রঋণের দরকার নেই। অবশ্যই তা দরকার আছে আগে মানুষ তারপর ক্ষুদ্রঋণ। আমি করি মানুষ বাঁচলে দেশ বাঁচবে।

এখানে হয়তো অনেকেই বলতে পারেন যে এনজিওর কিস্তি পরিশোধ না করলে ভবিষ্যতে এনজিও আপনাকে আমাকে লোন দেবে না। তাদের জন্য বলছি, ভাই অবশ্যই তারা লোন দেবে। তারা যদি লোন না দেয় তাহলে তারা চলবে কিভাবে? যাদের সামর্থ্য আছে তারা কিস্তি পরিশোধ করুক, আর যাদের সামর্থ্য নাই তাদের কিছুদিন সময় দেওয়া হোক। অনেকে বলবে কিছু টাকা হলেও হাতে ধরিয়ে দিতে। তাদের উদ্দশ্যে বলবো, বিভিন্ন এনজিওগুলোর কর্মচারীরা কিস্তি কম নিতে অপারগ, তারা ফুল পেমেন্ট চায়, উল্টো এমনও দেখা গেছে যে লকডাউন চলাকালীন যে কিস্তি স্থগিত করা ছিল তাও গ্রাহককে চাপ দিচ্ছে কিস্তি পরিশোধ করতে, অন্যথায় এনজিও কর্মীরা খুব বাজে ব্যবহার করছে।

আমি মনে করি মানুষের উপর এখন গলার কাঁটা হয়ে যাচ্ছে এনজিওগুলো। যাদের অনেকেরই এই পরিস্থিতিতে ঋনের কিস্তি পরিশোধ করার সামর্থ্য নেই। আজ না হয় কাল আপনাদের কিস্তি পরিশোধ সবাই করবে। আপনারা সুদিনের সময় লাভ করেছেন, এখন এই দুর্দিনে মানুষকে সাহায্য করতে না পারেন, একটু সময় দিয়ে সহায়তা তো করতে পারেন? যারা ক্ষুদ্রঋণ গ্রহণ করেছে তারা আপনাদের টাকা মারবে না, কারণ তারা গরীব। বড় বড় রাঘব-বোয়ালদের চিন্তা করুন। যারা লোন নিয়ে দেউলিয়া হয়ে গেছে। গরীব কোনদিন দেউলিয়া হবে না।

যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, আপনারা প্লিজ কিছু একটা ব্যবস্থা গ্রহণ করুন অন্যথায় খেটে খাওয়া মানুষগুলো এ সমস্ত এনজিওগুলোর অত্যাচারে মারা যাবে।

লেখক: মোঃ বাহার উদ্দিন, ম্যানেজার
জনতা ব্যাংক লিমিটেড। সদস্য, বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি। সদস্য, ইন্সটিটিউট অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ। প্রাক্তন শিক্ষার্থী (অর্থনীতি বিভাগ) শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com